লকডাউনে পুলিশের মানবিক মুখ, রুগীকে রক্ত দিয়ে সাহায্য !

দুবেলা, রৌণক দত্ত চৌধুরীঃ  গোটা রাজ্য যখন করোনা ত্রাসের ফলে লকডাউন। ঠিক এমন সময়ই এক মানবিক দৃশ্য উঠে আসলো কলকাতা পুলিশের তরফ থেকে। দেখা গেল শ্যামবাজার পাঁচ মাথার মোড়ে এক মহিলা তার ভাই এর জন্য রক্তের সন্ধানে রাস্তায় ঘুরে বেড়ায়। গোটা রাজ্য লকডাউন থাকার ফলে কোন জায়গায় থেকে সাহায্য মেলেনি। অবশেষে শ্যামবাজার মোড়ে কর্মরত পুলিশকর্মীরা সেই রক্তের ব্যবস্থা করে দিল। তাদের মধ্যেই একজন শ্যামবাজার ট্রাফিক গার্ডের কর্মরত পুলিশকর্মী দেবোপম তার সঙ্গে রক্তের গ্রুপ মিলে যায় এবং তিনি স্বেচ্ছায় জানান তিনি রক্ত দেবেন। তারপর তারা নিজেরাই সেই মহিলাকে নিয়ে আর জি…

করোনা নিয়ে সচেতনতার গান লিখলেন মুখ্যমন্ত্রী , গাইলেন ইন্দ্রনীল সেন

দুবেলা, রৌণক দত্ত চৌধুরীঃ রাজ্যে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস, উঠে আসছে করোনা আক্রান্তের খবর। ইতিমধ্যে রাজ্যে এই ভাইরাসের ফলে মৃত্যু হয়েছে ১জনের। যাতে সংক্রমণ আর না ছড়ায় তার জন্য সচেতনমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে রাজ্য সরকার। দেখা গেছে মুখ্যমন্ত্রী নিজে বিভিন্ন হাসপাতালগুলিতে গেছেন পরিদর্শন করতে। তবুও কিছু কিছু জায়গায় মানুষের গাফিলতির চিত্র উঠে এসেছে। এর জন্য রাজ্য সরকার নতুন পদক্ষেপ গ্রহণ করল। মুখ্যমন্ত্রীর লেখা গানের মাধ্যমে সমাজকে সচেতন করার এক অন্যতম প্রয়াস করল রাজ্য সরকার। গানটিতে সুর দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী এবং গানটি গেয়েছেন ইন্দ্রনীল সেন। গানটির প্রথম লাইন শুরু হচ্ছে, ‘স্তব্ধ করো…

‘গালি বয়’-র পর আবার জুটি বাঁধতে চলেছেন রনবীর-আলিয়া

দুবেলা, সুচিস্মিতা চন্দ্রঃ সাম্প্রতিক সঞ্জয় লীলা বানসালির ছবিতে আবারও জুটি বাঁধতে চলেছেন রণবীর আলিয়া। সঞ্জয় লীলা বানসালির এর আগে বেশ কয়েকটি ছবিতে রণবীর সিংকে দেখা গিয়েছে। এবার আলিয়াকেও দেখা যাবে তার নতুন ছবি গাঙ্গুবাঈ কাথিয়াওয়াড়ি তে গাঙ্গুবাঈ এর চরিত্রে অভিনয় করতে। কিন্তু এবার রণবীর-আলিয়া এই হিট জুটিকে একসঙ্গে দর্শকের সামনে আনতে চলেছেন বানসালি। এমনটাই জানা যাচ্ছে যে ‘বৈজু বাওরা’ ছবির আদলে তার ছবি তৈরীর কথা ভাবছেন বানসালি। বরাবরই আমরা দেখে এসেছি বানসালির ছবিতে সর্বদা গানের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকে, তাই এক্ষেত্রেও অন্যতা হচ্ছে না বলেই জানা যাচ্ছে।

আজকের গল্পঃ কে বলে নারী তুমি অস্পৃশ্য অশুচি ???

কে বলে নারী তুমি অস্পৃশ্য অশুচি ??? পুরুষ শাসিত সমাজে নারীর প্রতি অশ্রদ্ধার নিদর্শন ফুটে ওঠে বিভিন্ন প্রান্তে । কিন্তু নারীদের কী অবস্থান ? বেশিরভাগ নারীর কাছেই তার পিরিয়ড মানেই লজ্জা – ঘৃণা মিশ্রিত অন্ধকারময় কয়েকটি দিন । আসলে সমাজ জন্মলগ্ন থেকেই নারীকে বোঝায় যে নারীজন্ম মানেই যেন একটা অভিশাপ ! ! ! কিন্তু নারীদেরও বুঝতে হবে পিরিয়ড তাদের কাছে কোনো লজ্জার নয় বরং তা অনেক সম্মানের এবং তা তাদের কাছে মাতৃত্বের প্রতীক ! পিরিয়ড হলেই নাকী মেয়েরা ঠাকুর ছুঁতে পারে না , অঞ্জলী দিতে পারে না , মন্দিরে যেতে…