পদ্মশিবিরে চৌকিদারের হিড়িক নিয়ে কটাক্ষ বিরোধীদের!

দুবেলা, সম্পূর্না সাহাঃ  ২০১৯ এর লোকসভা ভোটে কংগ্রেসের ট্যাগ লাইন ‘গালি গালি ম্যায় শোর হ্যায়,চৌকিদার  চোর হ্যায়’ কে হাতিয়ার করেই বিজেপি তাদের প্রচার শুরু করল। রবিবার সকালে হঠাৎই টুইটার হ্যান্ডেলের নাম বদলের হিরিক পরে যায় বিজেপি শিবিরে।   তার শুরুটা করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্বয়ং। তিনি তার টুইটার হ্যান্ডেলের নাম বদলে হঠাৎই করে ফেলেন “চৌকিদার নরেন্দ্র মোদী”।

বেলা বাড়ার সাথে সাথেই ‘চৌকিদার’এর সংখ্যাও বাড়তে থাকে। বিজেপির সব শীর্ষস্থানীয় নেতারা একে একে নিজেদের টুইটার হ্যান্ডেলের নাম বদল করেন। সেই তালিকায় রয়েছেন ‘চৌকিদার অমিত শাহ’, ‘চৌকিদার রাজনাথ সিং’, ‘চৌকিদার নির্মলা সীতারামন’, ‘চৌকিদার স্মৃতি ইরানি’ আরও অনেকে।

আর তা দেখে হৃষ্ট প্রধানমন্ত্রীর টুইট ‘সব চৌকিদারকে স্বাগত। আপনাদের উদ্দিপনা দেখে আমরা আনন্দিত। আপনাদের নজরদারির জন্যই দুর্নীতি দূর হয়েছে। চোরেরা ব্যথা টের পাচ্ছে’। তিনি খুশি হলেও বিরোধীরা কটাক্ষ করতে একবারের জন্যেও পিছপা হননি। কংগ্রেস নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া প্রধানমন্ত্রীর টুইটকে কটাক্ষ করে বলেন ‘সকলে ওর মতো চৌকিদার হলে, দেশকে রক্ষা করবে কে?। সপা নেতা অখিলেশ যাদবের দাবী ‘দেশের প্রধানমন্ত্রী চাই, প্রচারমন্ত্রী নয়’।

তবে এতো সব টুইটের মধ্যে মোদীজীর ভ্রুকুটি কুঞ্চিত করেছে ফতিমা নাফিসের টুইট। জেএনইউ এর নিখোঁজ ছাত্র নাজিব আহমেদের মায়ের প্রশ্ন ‘আপনি যদি সত্যি চৌকিদারই, তবে জবাব দিন, আমার ছেলে কোথায় গেল? কেন তিন বছরে তার কোনও খোঁজ মিলল না?’ এই চৌকিদার তরজা এতো তাড়াতাড়ি থামবার নয় বরং এই তরজায় ভালো করে গোবো ঘৃত ঢালবার জন্য রীতিমতো প্রস্তুতি নিচ্ছে বিরোধীরা। সুতরাং জনগন ‘আল ইজ ওয়েল’ বলে বুকে হাত দিয়ে শুয়ে পড়ুন।

Spread the love
  • 12
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    12
    Shares

Related posts

Leave a Comment