দেশের ৪ হাজার MP ও MLA নামে ক্রিমিনাল কেস !

দুবেলা,শুভ ভট্টাচার্য্যঃ  দিনের পর দিন বর্তমান-প্রাক্তন বিধায়ক এবং সাংসদদের নামে ক্রিমিনাল কেস একের পর এক পড়ে রয়েছে বিভিন্ন রাজ্যের হাইকোর্টের টেবিলে। গোটা দেশে সেই সংখ্যাটা নেহাত কম নয়, প্রায় চার হাজার ১২২ । একটি জনস্বার্থ মামলার শুনানিতে এমনই তথ্য জমা পড়েছে দেশের শীর্ষ আদালতের প্রধানবিচারপতি রঞ্জন গগৈ-এর ডিভিশন বেঞ্চে। জানা গিয়েছে, বর্ষীয়ান আইনজীবী বিজয় হাসাঁরিয়া এবং স্নেহা কালটিয়া বিভিন্ন রাজ্যের হাইকোর্টের থেকে এই তথ্য সংগ্রহ করে শীর্ষ আদালতে জমা দিয়েছেন।  গোটা বিষয়টি নিয়ে তাঁরা জানিয়েছেন এমনও হাই কোর্ট রয়েছে যেখানে ১৯৯১ সাল থেকে চলা মামলার নিষ্পত্তি এখনও হয়নি। কিছু দিন…

আমরা সত্যিই ফুটবল ভালোবাসি!

দুবেলাঃ খেলা দেখতে আর মন চায় না৷ কী দেখবো? একে তো বড় কোনও দল নেই, তায় আবার মেসি, নেইমাররা সব একে একে বিদায় নিয়েছে৷ কাকে আর দেখবো! আহা রে! এবার আর কোনও বড় দল থাকল না৷ এসব কথা শোনেননি অথবা বলেননি, এমন লোক এ বাংলায় খুব কম রয়েছেন৷ হাজার হোক বাঙালির সব খেলার সেরা ফুটবল৷ সত্যিই কি ফুটবল? আসলে আমরা ফুটবল কতটা ভালবাসি তা নিয়ে কিন্তু প্রশ্ন থেকে যায়৷ যদি সত্যি ভালবাসতাম, তা হলে আমরা ফুটবলটাকে দেখতাম, কোনও নির্দিষ্ট দেশ বা নির্দিষ্ট ফুটবলার নয়৷ তর্কে সময় কাটানো বা লড়িয়ে দেওয়া…

মিছে দোষারোপ, নিজের কর্মফল

বেশ কয়েক দিন আগের কথা৷ বর্ষা নামার আগে হওড়ার নিকাষি ব্যবস্থা ঠিক করার কাজে হাত লাগিয়েছিল পুরসভা৷ এমনিতেই হাওড়া পুর এলাকার বেশ কয়েকটি জায়গাতে জল জমার রেকর্ড রয়েছে৷ এই নিয়ে জনমানসে ক্ষোভও নতুন নয়৷ তাই আগে থেকে সবধান হওয়া ভাল৷ নালা পরিস্কারের সময় যা অভিজ্ঞতা হল তাতে উপস্থিত অনেক পুরকর্মীদের চক্ষু চড়কগাছ৷ প্লাস্টিকের বর্জ, মূলত বোতল রাখার জায়গা নেই৷ গাদাগাদি করে সব নালার জলের সঙ্গে সহাবস্থান করছিল৷ কমবেশি এ ছবি সমস্ত পুর এলাকারই৷ বেশ কয়েকটি এফএম চ্যালেনে কান পাতলেই শোনা যায় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের পরিবেশ দফতরের নিষেধাজ্ঞার কথা৷ অন্তত একবার ব্যবহারযোগ্য…

আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাসী?

সে দিন যদি আপনি পরিবর্তনের পক্ষে রাস্তায় নেমে থাকেন, তাহলে আজ আপনার শাসক দলের সব সিদ্ধান্তেই সিলমোহর দিতে হবে৷ কোনও কিছু না-পছন্দ্ হলে চলবে না৷ তা  না হলে সেদিন আপনি পরিবর্তনের পক্ষে সওয়াল করেছিলেন কেন? একবার সমর্থন করা মানে এবার তার সব কিছু মেনে নিতে হবে৷ বোধ বুদ্ধি সব বিসর্জন দিতে হবে৷ সহজ পাটিগণিত৷ আচ্ছা, মানুষ কি বন্ধ ঘড়ি৷ সার ক্ষণ কি একই টাইম দিতে হবে? এই যে সারাক্ষণ গলা ফাটাই আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাসী৷ ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্য আমাদের মর্জায়৷ তাই তো আমরা ‘তর্কপ্রিয় ভারতীয়’৷ বহু মত আর বহু স্বর নাকি আমাদের ঐতিহ্য৷…

৬ বছর! হঠাৎ এখন ভালমানুষি কেন?

  সেলিব্রিটি বলে কথা৷ তাদের কাছে আমার আপনার মতো যদু, মধুরও অনেক প্রত্যাশা থাকে৷ প্রকাশ্যে অন্তত তাদের অনেক কিছুই এড়িয়ে চলতে হয়৷ হাজার হোক সেলিব্রিটি৷ আমাদের রোল মডেল৷ অনেকক্ষণ প্লেন জার্নির পর বিমান বন্দরে নেমেই ধুমপান করা যায় না৷ হাজার তেষ্টা পেলেও যেখানে সেখানে অ্যালকোহলে চুমুক দেওয়া যায় না৷ কদিন আগেও কিছু লোক সেলিব্রিটিদের যেমন তেমন বিজ্ঞাপণ দেওয়া যাবে না বলে আওয়াজ তুলে পথে নেমেছিলেন৷ হাজার ঝক্কি৷ নৈতিকতা, আইন কত কিছুর চোখরাঙানি৷ ভাবুন তো, কেষ্ট বিষ্টু কেউ একজন কৃষ্ণসার হরিণ শিকার করলে এদ্দিন ধরে মামলা চলত? আবার মামলা জিততে অনেক…