নাটকীয় ভাবে জিতে কোয়ালিফায়ার টু-তে দিল্লি।

দুবেলা, সানি ভগতঃবুধবার নাটকীয় ভাবে জয় হাসিল করল দিল্লি। শেষ ওভারে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদকে দুই উইকেটে হারিয়ে আইপিএলের কোয়ালিফায়ার টু-তে পৌঁছে গেল ক্যাপিটাল। তবে বিশাখাপত্তনমে ঝড় উঠল ঋষভের ব্যাটেই, ২১ বলে ৪৯ রান করে গেলেন তিনি।

শুক্রবার সৌরভের দিল্লির সামনে এবার ধোনির চেন্নাই। সেই ম্যাচ জিতলে প্রথমবার আইপিএলের ইতিহাসে ফাইনালে উঠবে দিল্লি।

যে ঋষভের জন্য দিল্লি জয় পেল, তার জন্যই হেরে যেতে পারত। জেতার জন্য মাত্র পাঁচ রান বাকি, তখন ছক্কা মারতে গিয়ে ক্যাচ তুলে আউট হয়ে ফিরে যান ঋষভ।

ম্যাচের শেষ ওভার ছিল একটা নাট্যমঞ্চ, খলিল আহমেদ বল করছিলেন। তাঁর ছোঁড়া বল গিয়ে লাগে দিল্লির ব্যাটসম্যান অমিত মিশ্রর গায়ে। হায়দ্রাবাদ দাবি তোলে, ইচ্ছে করে উইকেট আড়ালের চেষ্টা করছে দিল্লি। থার্ড আম্পায়ারও অবস্ট্রাকিং দ্য ফিল্ড আউট দিয়ে দেন। তখনও দু রান বাকি জেতার জন্য। কিমো পলের ৪ জিতিয়ে দেই দিল্লিকে।

তবে এই দিনের রান আইপিএলের বিচারে বিশাল কিছু রান নয়। টস জিতে হায়দ্রাবাদকে প্রথমে ব্যাট করতে পাঠায় দিল্লি।

শুরুতেই উইকেট হারায় হায়দ্রাবাদের ঋদ্ধিমান, ৯ বলে ৮ রান করে ফিরে গেলেন তিনি। মার্টিন গাপ্টিল(১৯ বলে ৩৬ রান) শুরুটা ভালো করলেও অন্য কারোর ব্যাট থেকে বড় রান এল না এই দিন। মনীশ পান্ডে (৩০), মহম্মদ নবি (২০), কেন উইলিয়ামসন(২৮) তেমন রান না করলেও বিজয় শঙ্কর (১১ বলে ২৫ রান) রান বাড়ানোর একটা চেষ্টা করেছিলেন। তবে দলের বোলারদের পারফরম্যান্স ছিল চোখে পড়ার মতো, ১৫ রানে ২ উইকেট নিয়ে ম্যাচে চেহারা ঘুরিয়ে দেয় রশিদ খান।

হায়দ্রাবাদের ১৬২-৮ এর বিরুদ্ধে রান তাড়া করতে নেমে ১৯.৫ ওভারে ১৬৫-৮ করে দিল্লি। রাবাডার অনুপস্থিতি অনেকটা হলেও পুরণ করেন ওয়েস্ট ইন্ডিজ পেসার কিমো পল। ৪ ওভারে ৩২ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন তিনি। ইশান্ত শর্মা পান দুটি উইকেট।

তবে আসল কাজ করলেন ব্যাট হাতে ঋষভই। তাই বিশ্বকাপের টিমে ঋষভ পন্থকে না দেখে অবাক হয়েছেন প্রক্তন ক্রিকেটার ও দলের মেন্টর সৈরভ গঙ্গোপাধ্যায়।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Related posts

Leave a Comment