ঠাকরে রিলিজ নিয়ে কি বললেন নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি!

দুবেলাঃ একজন অভিনেতাকে ঠিক তখনই দক্ষ অভিনেতা হিসেবে বিবেচনা করা হয় যখন তার সিনেমা বক্স-অফিসে একশো কোটির ব্যাবসা করে। ঠিক যখনই বলিউড সম্পর্কে এই ধরনের ধারনা গড়ে উঠছে, ঠিক সেই সময় নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকির ‘ঠাকরে’ সাড়া ফেলছে গোটা বলিউডে।

অভিনেতা নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকিকে বরাবরই একটু অফ-বিট সিনেমায় কাজ করতে দেখা গিয়েছে। তিনি বলেন তাঁর সিনেমা বক্স অফিসে কত কোটি টাকার ব্যাবসা করল তা নিয়ে তিনি একেবারেই মাথা ঘামান না। কিন্তু যদি একজন অভিনেতার প্রতিভা শুধুমাত্র সংখ্যা দিয়ে বিচার করা হয় তাহলে তিনি যেকোনো খেলাও খেলতে পারেন।

নওয়াজউদ্দিন সংবাদসংস্থা পি.টি.আই কে একটি ইন্টারভিউতে বলেছেন – “আমি বক্স অফিস নিয়ে বিন্দুমাত্র চিন্তিত নই, যদি আমি বক্স অফিস নিয়ে ভাবতাম তাহলে আমি আমার অভিনয় ক্যারিয়ার জুড়ে নাচ গানের ছবিই করতাম যেগুলো বক্স অফিসে খুব তাড়াতাড়ি হিট হয়।কিন্তু আজ মনে হচ্ছে আপনি যদি বক্স অফিসে একশো কোটি টাকার সিনেমা করেন একমাত্র তখনই আপনাকে ভালো অভিনেতা হিসেবে গন্য করা হবে।”

তিনি আরও বললেন ” আমার মনে হয় আমার সেই ধরনের সিনেমা করা উচিত যাতে কমেডি থাকবে মশলাও থাকবে।আমি সেই ধরনের সিনেমা করতে পারি যাতে আমি বিশ্বাস করি এবং একইসাথে এই ধরনের সিনেমাও করতে পারি।

তিনি বললেন ” এই সিনেমাটিতে কোনো গান নেই,কোনো কমেডি নেই, কোনো রহস্য নেই।সিনেমাটি একটি মানুষের জীবনকে কেন্দ্র করে,যার কাহিনী আমরা দু ঘন্টায় জানতে পারি।যখন এই ধরনের সিনেমা সাফল্য পায়,তখন আনন্দ হয়। সপ্তাহান্তে আমরা সাফল্য দেখতে পায় যা এখনও বজায় রয়েছে।”

নওয়াজউদ্দিন বলেন তিনি কটা টিকিট বিক্রি হল তা নিয়ে চিন্তিত নন বরং দর্শক সিনেমাটিকে কিভাবে গ্রহন করবেন তা নিয়ে চিন্তিত।

তিনি আরও বলেন- ” আমি শুক্রবার বক্স অফিস নিয়ে চিন্তিত ছিলাম না বরং একটু ঘাবড়ে গিয়েছিলাম কারন এই সিনেমাটির মতোই যেগুলোকে ‘বিষয়বস্তু চালিত সিনেমা’ বলে তাতেও আজকাল পাঁচটি করে গান থাকছে,এই সিনেমাটি তার মধ্যে ছিল না। তো আমি বরং ঘাবড়ে ছিলাম এটা ভেবে যে সিনেমাটিকে কিভাবে গ্রহন করা হবে,এটাও ভাবছিলাম যে দর্শকরা সিনেমাটিকে কিভাবে গ্রহন করবেন”

যদিও বা সিনেমাটিকে কেও কেও ‘প্রোপাগান্ডা’ হিসেবে দেখছেন কিন্তু অভিনেতার মতে তিনি এই যুক্তিটির যুক্তিসংগতা বুঝতে পারছেন না।

তিনি বলেন “সিনেমাটিকে প্রোপাগান্ডা বলার মতো কি করেছি আমরা? আমরা বহু বছর ধরে হিরো – কেন্দ্রিক সিনেমা বানাচ্ছি,যেখানে আমরা হিরোর দুর্বলতা প্রকাশ করছি না,হিরোর খারাপ দিক গুলো তুলে ধরছিনা।সেটা কি প্রোপাগান্ডা নয়? যখন হিরোর চরিত্রটিকে একেবারে নিঁখুত করে তুলে ধরা হয় তখন তাকেও প্রোপাগান্ডা বলা হয়”

নওয়াজউদ্দিনের হাতে ‘পাইপলাইন’,রিতেশ বাত্রা’র ‘ফোটোগ্রাফ’, ‘স্যাক্রেড গেমস’ সহ আরো মোট ছয়টি প্রোজেক্ট রয়েছে।

Spread the love
  • 4
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    4
    Shares

Related posts

Leave a Comment