নিঃশব্দে চলে গেলেন মৃণাল মুখোপাধ্যায়, পড়ে রইলো তার কাজ!

দুবেলা,সম্পূর্ণা সাহাঃ বাংলা ছবির জগতে আরও একটি নক্ষত্রের পতন। প্রয়াত হলেন বাংলা ছবির বিশিষ্ট অভিনেতা মৃণাল মুখোপাধ্যায়। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। মাস কয়েক ধরে বার্ধক্যজনিত সমস্যাও তাঁকে গ্রাস করতে শুরু করে ছিল। কিছু দিন আগে আবার ধরাও পড়ে জন্ডিস। সোমবার তার শারিরীক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এবং ৭ মে অর্থাৎ মঙ্গলবার সকালে দক্ষিণ কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

মেয়ে জোজো বিখ্যাত সঙ্গীত শিল্পী। ছেলে অভিনেতা দেবপ্রিয় মুখোপাধ্যায় জনপ্রিয় শিল্পী। তা সত্ত্বেও টলিউডে গুঞ্জন তাকে বিনা কদরে চলে গেলেন তিনি।

তবে একদা নানান চরিত্রে তাকে দেখা গেলেও ক্রমে তাঁকে খলচরিত্রেই বেশি অভিনয় করতে দেখা যায়। সব রকম চরিত্রকেই তিনি তাঁর অভিনয় দক্ষতার মাধ্যমে রূপদানে স্বচ্ছন্দ ছিলেন। বড়ো পর্দা হোক বা টেলিভিশন দুই জায়গাতেই সমান জনপ্রিয় ছিলেন তিনি।

তাঁর অভিনয়ের পথ চলা শুরু হয় ১৯৫৫ সালে শিশুশিল্পী হিসেবে ‘দুই বোন’ ছবিতে তিনি আত্মপ্রকাশ করেন। এরপর তাঁকে পর্দায় দেখা যায় ১৯৬৫ সালে, উত্তমকুমার অভিনীত হিট ছবি ‘সূর্যতপা’-তে পার্শ্বচরিত্রে। ষাটের দশক থেকে নব্বইয়ের দশক, বাংলা ছবিতে বিভিন্ন ভূমিকায় দাপিয়ে অভিনয় করেছেন মৃণাল মুখোপাধ্যায়। তাঁর অভিনীত ছবিগুলির মধ্যে অন্যতম ‘গল্প হলেও সত্যি’, ‘নায়িকা সংবাদ’, ‘ছুটি’, ‘পদী পিসির বর্মি বাক্স’, ‘শ্রীমান পৃথ্বীরাজ’, ‘ফুলেশ্বরী’, ‘ঠগিনী’ ইত্যাদি।

কয়েকটি হিন্দি ছবিতেও তাঁকে দেখা গিয়েছে চরিত্রাভিনেতা হিসেবে। এদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য সঞ্জীব কুমার ও শর্মিলা ঠাকুর অভিনীত গুলজার পরিচালিত ‘মৌসম’। তাঁর সাম্প্রতিক ছবিগুলির মধ্যে জনপ্রিয় হয় ২০১৬ সালে মুক্তি পাওয়া ‘ব্যোমকেশ ও চিড়িয়াখানা’।

প্রায় পাঁচ দশকের বেশী সময় ধরে অভিনয়ের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন মৃণাল মুখোপাধ্যা। তিনি যে শুধু অভিনয়ে দক্ষ ছিলেন তা কিন্তু নয় সংগীত শিল্পী এবং সঙ্গীত নির্দেশক হিসেবেও জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন মৃণাল।

শিল্পীর অকাল প্রয়ানে শোকের ছায়া টলিউড এবং বলিউড মহলে।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Related posts

Leave a Comment